ই-পেপার বাংলা কনভার্টার রোববার ২৬ মে ২০২৪ ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
ই-পেপার রোববার ২৬ মে ২০২৪
ব্রেকিং নিউজ: ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় ৬ জেলাকে বিশেষ প্রস্তুতির নির্দেশ      চার সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত      গুণে-মানে প্রশ্ন, তবু বাড়ছে নতুন বিশ্ববিদ্যালয়      ঢাকায় কোনো বস্তি-অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ থাকবে না, সেই ব্যবস্থা করে দেবো: প্রধানমন্ত্রী      উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফের সংঘর্ষ : আহত ১০      কুয়াকাটায় ভেসে এলো ৭ ফুট লম্বা মৃত ডলফিন      




চাষীদের মুখে চিন্তার ভাজ
কালাইয়ে ঝরে পরছে আম ও লিচু
কালাই (জয়পুরহাট) সংবাদদাতাঃ
Published : Monday, 22 April, 2024 at 1:20 PM, Update: 23.04.2024 5:43:03 PM
গত কয়েকদিন এর তুলুনায় তীব্র তাপপ্রবাহের কারনে ঝরে পরছে আম ও লিচুর গুটি। চলতি বছরে জয়পুরহাটের কালাইয়ে আম ও লিচুর ব্যপক মুকুলের পর গুটি চোখে পরলেও অতিরিক্ত মাত্রায় তাপপ্রবাহের কারনে গুটিগুলো পঁচে, ফেঁটে ও হলুদ হয়ে ঝরে যাচ্ছে। গত মাসে তাপমাত্রা স্বাভাবিক থাকলেও হঠাৎ এপ্রিলের শুরু থেকে প্রতিদিনই বাড়ছে তাপপ্রবাহ । একদিকে অনাবৃষ্টি, অন্যদিকে খরার কারণে দেখাগেছে সকালবেলা গাছের নতুন পাতা ঝকমক করছে। অপরদিকে বেলা গড়ার পরে দেখাযায় গাছের সেসব পাতা মরে যাবার উপক্রম হয়। আম ও লিচু ঝরে পরা থেকে রক্ষা করতে অনেক চাষীরা সকাল-বিকাল গাছে পানি স্প্রে করছে। এর পরেও তারা গুটি ঝরে পরাথেকে রক্ষা করতে পারছেন না। এমন অবস্থায় বিপাকে পড়েছেন চাষী ও বাগানের মালিকরা।

 তারা বলেন, আম ও লিচুর গুটি যেভাবে ঝরছে এরকমটি ঝরতে থাকলে ফলন না পাওয়া সম্ভাবনা বেশি। তবে গাছে এখনো যে পরিমাণ গুটি আছে আবহাওয়া স্বাভাবিক এবং বৃষ্টি হলে তা ঝরে পরা বন্ধ হতে পারে। তারপরও সকল কিছু কাটিয়ে লাভের আশা করছেন চাষীরা। 

কালাই উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ  অধিদপ্তরের তথ্যমতে, চলতি বছর এ উপজেলায় ৬০হেক্টর জমিতে আম চাষাবাদ হয়েছে। এতে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১১হাজার ১৩ মেট্রিক টন। অপরদিকে, লিচু চাষ হয়েছে ১৩ হেক্টর জমিতে । এতে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২৬ মেট্টিক টন। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ফলন আরো ভালো হবে আশা তাদের। 

কালাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ অরুণ চন্দ্র রায় বলেন, অর্থকরী এই মৌসুমী ফল থেকে প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করেন স্থানীয় আম ও লিচু চাষী এবং ব্যবসায়ীরা। ফলে স্থানীয় অর্থনীতিতে এর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।

 তিনি বলেন, আম ও লিচুর গুটি ঝরে পরারোধে সবসময় আমাদের পক্ষ থেকে চাষী পর্যায়ে ১৫ দিন পরপর গাছে সেচ ও সকাল-বিকাল বেশি করে পানি স্প্রেসহ সঠিক মাত্রায় ছত্রাকনাশক এবং বোরন স্প্রে করে দিতে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। প্রাকৃতিক কোন বড় ধরণের দুর্যোগ না হলে আম ও লিচু  বাম্পার ফলনে চাষীরা তাদের খরচ পুশিয়ে নিতে পারবে বলে আশা।







সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত এবং মনিরামপুর প্রিন্টিং প্রেস ৭৬/এ নয়াপল্টন, ঢাকা থেকে মুদ্রিত।
পিএবিএক্স: ৪১০৫২২৪৫, ৪১০৫২২৪৬, ০১৭৭৫-৩৭১১৬৭, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ৪১০৫২২৫৮
ই-মেইল : [email protected], [email protected], [email protected]
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
পিএবিএক্স: ৪১০৫২২৪৫, ৪১০৫২২৪৬, ০১৭৭৫-৩৭১১৬৭, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ৪১০৫২২৫৮
ই-মেইল : [email protected], [email protected], [email protected]