ই-পেপার বাংলা কনভার্টার শনিবার ২২ জুন ২০২৪ ৭ আষাঢ় ১৪৩১
ই-পেপার শনিবার ২২ জুন ২০২৪
ব্রেকিং নিউজ:




চোর আতংকে গরুর মালিকরা
রামগতিতে ৫ গরু হারিয়ে দিশেহারা কাশেমের পরিবার
রামগতি (লক্ষ্মীপুর) সংবাদদাতা
Published : Monday, 10 June, 2024 at 3:44 PM
কুরবানী ঈদে ভালো দাম পাওয়ার আশায় গতো ছয় মাস ধরে ৩টি ষাঁড় এবং দুটি গাভী পালন করছেন আবুল কাশেম। বিভিন্নজন থেকে ধার-দেনা করে প্রয়োজনীয় গো-খাদ্য সামগ্রি কিনছেন। তাঁর বাড়ি লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চর আলেকজান্ডার ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড সবুজগ্রামে। 

সোমবার (১০ জুন) গভীর রাতে সংঘবদ্ধ চোর হানা দিয়ে খোয়াড় থেকে নিয়ে যায় সবগুলো গরু। 

ভুক্তভোগী কাশেম জানান, রাত একটার সময় খোয়াড় দেখে-শুনে ঘরে ঘুমাতে যাই। ভোরে ঘুম থেকে উঠে গোয়ালঘরের তালা খোলা ও শুন্য দেখতে পাই। সাথে সাথে পরিবারের একাধিক সদস্যরা আশপাশের এলাকায় গরুগুলো খুঁজতে নেমেছেন। সোমবার দুপুর ২টা পর্যন্ত এখনো সন্ধান পাননি। 

ভুক্তভোগি পরিবারের সদস্যরা জানান, চুরি হওয়া তিনটি ষাঁড়ের মধ্যে দুটি বিক্রি হয়েছিলো। ১লক্ষ ৫ হাজার টাকা এবং একটি ৮০হাজার দরদামে বায়না করে গেছেন ক্রেতা। ঈদের আগের দিন গরুগুলো হস্তান্তর করার কথা ছিলো। এরমধ্যে চুরি যাওয়ায় বিপাকে পড়তে হয়েছে তাদের। ক্রেতাকে কীভাবে সামলাবেন সে চিন্তায় ভেংগে পড়েছেন তারা। চুরি যাওয়া গরুগুলোর বর্তমান মূল্য আনুমানিক ৫লক্ষ টাকা। 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভুক্তভোগি কাশেমের পরিবারের তিন পুরুষ সদস্য ও আত্মীয়দের কয়েকজন মিলে আশপাশের এলাকায় গরুর খোঁজে নেমেছেন। হাটগুলোতেও পাঠিয়েছেন খোঁজ নিতে। শেষ সম্বল গরুগুলো হারিয়ে পরিবারের মহিলা সদস্যরা অনেকটাই নির্বাক, হতাশাগ্রস্ত। ধার-দেনা না পেলে ধার-দেনা কীভাবে শোধ করবেন সে চিন্তায় পড়েছেন। আশপাশের মানুষজন গরুর পায়ের দাগ দেখে ধারনা করছেন মেঘনা তীরবর্তী এলাকা হওয়ায় নদীপথে চোরেরা গরুগুলো নিয়ে গেছেন।

ভুক্তভোগী পরিবার স্থানীয় ইউপি সদস্য মো: শামীম নুরনবীকে চুরি হওয়ার বিষয়টি জানিয়েছেন। ইউপি সদস্য গরুগুলো উদ্ধারে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা নিতে পরামর্শ দিয়েছেন। সকাল থেকেই ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে সান্ত্বনা ও সমবেদনা জানাতে আত্মীয় স্বজনসহ শতশত গ্রামবাসী বাড়িতে জড়ো হচ্ছেন। 

অনুসন্ধানে জানা যায়, উপজেলায় দ্বীপ ইউনিয়ন চর আবদুল্যাহ এবং মেঘনা নদী তীরবর্তী চর আলেকজান্ডার, চরআলগী, চররমিজ, বড়খেরী, চরগাজী ইউনিয়ন ও রামগতি পৌরসভার দুটি ওয়ার্ডের প্রায় তিন শতাধিক গরুচাষী প্রতিনিয়তই আতংকে রয়েছেন। কুরবানী ইদে এ আতংক বহুগুনে বৃদ্ধি পায়। এর মধ্যে ঈদ আসলে গরুচাষী পরিবারের সদস্যরা রাত জেগে পালাক্রমে পাহারা দেন। তাতেও শেষ রক্ষা হয় না। বেখেয়াল হলেই প্রায় প্রতিদিনই কোন না কোন গরুচাষীর গরু চুরি হচ্ছে। এলাকাবাসী ও সচেতনমহল মনে করেন, নদী তীর হওয়ায় চোরেরা খুব সহজে হানা দিতে পারছে। এছাড়াও বাহন হিসেবে নৌকায় করে সহজে চুরি করে গরুকে দ্রুত পারাপার করা যায়। আর চোরেরা এ সুযোগটাই কাজে লাগাচ্ছে। 

এর আগে ১৮মে গভীর রাতে  চররমিজ ইউনিয়নের চরমেহার গ্রামের সুয়েটার ফ্যাক্টরি সংলগ্ন কাঞ্চনের বাপের বাড়ী থেকে পিকআপ গাড়ীযোগে চোরচক্র একটি গাভী চুরি করে নিয়ে যায়। যার বাজারমূল্য আনুমানিক ১ লক্ষ টাকা বলে জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত কাঞ্চন মিয়া। অনেক জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেও গরুটির এখনো সন্ধান পাননি। এছাড়াও চর আবদুল্যাহ, চরআলেকজান্ডার, চরআলগী এবং চররমিজ ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় প্রায়ই সংঘঠিত হচ্ছে গরু চুরির ঘটনা। নদী পথে সহজে পার হয়ে যাওয়ায় পাকড়াও করা যাচ্ছে না চোরের দলকে।

চর আলেকজান্ডার ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শামীম আব্বাস সুমন জানান, সকালেই স্থানীয় মেম্বারের মাধ্যমে গরু চুরি হওয়ার বিষটি শুনেছি। আশপাশের এলাকা ও হাটবাজার গুলোতে খোঁজ খবর নিতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে ভুক্তভোগী পরিবারকে। আমরাও চেষ্টা করছি গরু গুলো উদ্ধার করতে।

রামগতি থানার অফিসার ইনচার্জ মো: মোসলেহ উদ্দিন জানান, এ বিষয়ে এখনো কোন অভিযোগ পাইনি। দ্রুত থানায় অভিযোগ করার পাশাপাশি আশপাশে খোঁজ খবর নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।







সম্পাদক ও প্রকাশক : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত এবং মনিরামপুর প্রিন্টিং প্রেস ৭৬/এ নয়াপল্টন, ঢাকা থেকে মুদ্রিত।
পিএবিএক্স: ৪১০৫২২৪৫, ৪১০৫২২৪৬, ০১৭৭৫-৩৭১১৬৭, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ৪১০৫২২৫৮
ই-মেইল : [email protected], [email protected], [email protected]
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
পিএবিএক্স: ৪১০৫২২৪৫, ৪১০৫২২৪৬, ০১৭৭৫-৩৭১১৬৭, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ৪১০৫২২৫৮
ই-মেইল : [email protected], [email protected], [email protected]